Uncategorized

৬ ঘণ্টা পড়ে থেকে মৃত্যু বৃদ্ধার, করোনা সন্দেহে কাছে গেলেন না কেউ – Kolkata24x7

কলকাতা: বাড়িতে সংজ্ঞাহীন অবস্থায় পড়ে রয়েছেন বৃদ্ধা৷ কিন্তু করোনা সন্দেহে কেউ তাকে সাহায্য করতে এগিয়ে এলো না৷ পরে পুলিশ এসে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠালে, চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষণা করে৷

রবিবার অমানবিক এই ঘটনাটি ঘটেছে বাগবাজারের বৃন্দাবন পাল লেনে৷ কার্যত এই খবর শিউরে উঠছেন শহরবাসী। কীভাবে এতটা অমানবিক হতে পারে এই শহর? ভাবতেই পারছেন না অনেকে।

জানা যায়, বাড়িতে সংজ্ঞাহীন অবস্থায় প্রায় ৬ ঘণ্টা পড়ে ছিলেন৷ ছায়া চট্টোপাধ্যায় নামে ওই সত্তর বছরের বৃদ্ধা। প্রথমে প্রতিবেশিরা দেখতে পান তাঁকে সংজ্ঞাহীন অবস্থায় পড়ে থাকতে৷ কিন্তু করোনা সন্দেহে কেউ তার কাছে যেতে সাহস পান না৷ তবে প্রতিবেশিরা পুলিশকে খবর দেন৷ শেষপর্যন্ত পুলিশ এসে ওই সত্তর বছরের বৃদ্ধাকে সংজ্ঞাহীন অবস্থায় উদ্ধার করেন৷

স্থানীয় সূত্রে খবর, বেশ কিছুদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন ছায়া দেবী। তাঁর পায়ে একটি সংক্রমণ ছিল৷ সেটা থেকেই সম্ভবত অসুস্থ হয়ে পড়েন বলে অনুমান৷ তবুও করোনা সন্দেহে পুলিশকে খবর দেওয়া হয়৷ করোনা রোগীকে অসহযোগিতার ছবি রাজ্যের একাধিক জায়গায়৷

অমানবিক আচরণের অভিযোগ বনগাঁর জীবনরতন ধর মহকুমা হাসপাতালের কর্মী ও অ্যাম্বুল্যান্স চালকের বিরুদ্ধে। উত্তর ২৪ পরগনার বনগাঁয় পড়ে থেকে মৃত্যু করোনা সন্দেহে ভর্তি হওয়া রোগী।

পরিবার সূত্রে খবর, শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে বনগাঁ জীবনরতন ধর মহকুমা হাসপাতালে ভর্তি হন ৬৫ বছরের ওই রোগী। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে, করোনা আক্রান্ত সন্দেহে তাঁকে বারাকপুরের একটি বেসরকারি হাসপাতালে রেফার করা হয়।

অভিযোগ, সংক্রমণের আশঙ্কায় রোগীকে অ্যাম্বুল্যান্সে তোলার জন্য কেউ এগিয়ে না আসায়, মাটিতে পড়ে থেকে মৃত্যু হয় তাঁর। এই ঘটনায় ফের একবার প্রশ্নের মুখে রাজ্যের স্বাস্থ্যের ছবিটা।

প্রশ্ন অনেক: তৃতীয় পর্ব



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button
Close
%d bloggers like this: