Uncategorized

শীতল হয়ে আসছে সূর্য, আসতে পারে ‘ভয়ং’কর দু’র্যোগ’

করো’না ভা’ইরাসের ম’হামা’রির মধ্যেই আরেকটি দুঃসং’বাদ দিলেন যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ গবেষণা সংস্থা নাসার বিজ্ঞানীরা। নাসার বিজ্ঞানীরা বলছেন, লকডাউনে চলে গেছে সূর্য। আর এ কারণে শীতল হয়ে আ’সছে এটি। এর ফলে বিশ্বে তাপমাত্রা কমে যাবে, পৃথিবী আরো শীতল হয়ে উঠবে। এছাড়া বিশ্বজুড়ে ভূমিকম্প ও দুর্ভিক্ষের মতো ভ’য়ংকর দুর্যোগ দেখা দিতে পারে বলে শ’ঙ্কা প্র’কাশ ক’রেছেন বিজ্ঞানীরা।

মা’র্কিন সংবাদ মাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্র’তিবেদনে বলা হয়েছে, সূর্য বর্তমানে ‘সোলার মিনিমাম’ প’রিস্থিতিতে রয়েছে। এর ফলে পৃথিবীতে সূর্যের স্বা’ভাবিক সময়ে সরবরাহ করা তাপমাত্রা অনেক কমে গেছে। অর্থাৎ পৃথিবীর প্রতি সূর্যের কার্যকলাপ নাটকীয়ভাবে হ্রাস পেয়েছে।

এ বিষয়ে বিশ্বখ্যাত জ্যোতির্বিজ্ঞানী ড. টনি ফিলিপস বলেন, বিশ্ববাসী সামনে এমন গ’ভীরতম এক সময়ের ভেতরে প্রবেশ ক’রতে যাচ্ছে, যেসময়ে সূর্যের আলো কার্যত অদৃ’শ্য হয়ে যাবে। সূর্যের সোলার মিনিমাম চলছে। এটি অত্যন্ত গ’ভীর। সানস্পট গণনা থেকে বোঝা যাচ্ছে এটি বিগত শতাব্দীর সবচেয়ে গ’ভীরতম অব’স্থানে রয়েছে। সূর্যের চৌম্বকীয় শ’ক্তি দু’র্বল হয়ে প’ড়েছে। এর মানে হলো সৌরজগতে অতিরি’ক্ত মহাজাগতিক শ’ক্তির প্রবেশের আভাস পাওয়া যাচ্ছে।

নিউইয়র্ক পোস্টকে বলেন জোতির্বিজ্ঞানী টনি ফিলিপস আরো বলেন, সৌরজগতে অতিরি’ক্ত মহাজাগতিক রশ্মি প্রবেশ করলে নভোচারী ও মেরুঅঞ্চলের জন্য তা হবে বিপজ্জনক। এছাড়া এটি পৃথিবীর ওপরের বায়ুমণ্ডলের বৈদ্যুতিক-রসায়নকে প্র’ভাবিত করে এবং ব’জ্রপাতও বাড়াবে।

সূর্যের এই লকডাউনে যাওয়ার ঘ’টনায়‘ডাল্টন মিনিমাম’ এর পুনরাবৃত্তি হতে পারে বলে শ’ঙ্কা প্র’কাশ ক’রেছেন নাসার বিজ্ঞানীরা। ১৭৯০ এবং ১৮৩০ এর মধ্যে সূর্যের মিনিমাম সোলারের কারণে তীব্র শীতের মুখে প’ড়েছিল পৃথিবী। এছাড়া ফসলের ভ’য়াবহ ক্ষ’তি, দুর্ভিক্ষ এবং শ’ক্তিশালী আগ্নেয়গিরির অগ্নুৎপাতের ঘ’টনা ছিল তখন।

ওই সময় ২০ বছরেরও বেশি সময় ধ’রে মাত্র দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায় পৃথিবী ডুবেছিল। বিধ্বস্ত হয়ে প’ড়েছিল খাদ্য উৎপাদন ব্যব’স্থা।

১৮১৫ সালের ১০ এপ্রিল ইন্দোনেশিয়ার তামবোরা পর্বতশৃঙ্গে দুই হাজার বছরের মধ্যে দ্বিতীয় সর্বো’চ্চ অগ্নুৎপাতের ঘ’টনা ঘ’টেছিল। সেই অগ্নুৎপাতে মুহূ’র্তেই অ’ন্তত ৭১ হাজার মানুষ মা’র যান। পরের বছর ১৮১৬ সালে বিশ্বের অনেক দেশে গ্রীষ্মকালই দেখা যায়নি। এমনকি জুলাইয়ের গরমের দিনও যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউরোপের বিভিন্ন দেশে তখন তুষারপাত হয়।



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button
Close
%d bloggers like this: