জাতীয়প্রধানমন্ত্রীসুখবর

প্রধানমন্ত্রী এই বিপদের দিনে সুখবর দিলেন কর্মহীন মানুষদের


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, ‘যাদের আয়-উপার্জনের পথ নাই, তাদের জন্যও আম’রা কিছু নগদ আর্থিক সহায়তা ঈদের আগে দিতে চাই। অ’ন্তত পক্ষে রোজা বা ঈদের সময় তারা যেনো কিছু সহযোগিতা পায়। সেই ব্যব’স্থাটা আম’রা করবো। যাতে মানুষের খাদ্য নি’রাপত্তা নি’শ্চিত হয়।

আজ সোমবার সকাল ১১টায় করো’না প’রিস্থিতি নিয়ে গণভবন থেকে রংপুর বিভাগের জে’লাগুলোর ঊর্ধ্বতন ক’র্মকর্তাদের স’ঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমা’র অনুরো’ধ থাকবে, বিনা কারণে ঘরের বাইরে যাওয়া, অনেক সময় দেখি আমাদের অনেক ছেলেরা এখানে-ওখানে বসে গালগল্প, আড্ডা মা’রা, এগুলো সব ব’ন্ধ ক’রতে হবে। কারণ কার মধ্যে

এই রো’গটা বা জী’বাণুটা আছে আপনি জা’নেন না। সেখান থেকে সংক্রামিত হতে পারেন এবং যেটা অনেক সময় মৃ’ত্যুর কারণ ঘটতে পারে। সে জন্য নিজেকে আপনারা সুরক্ষিত রাখার জন্য স্বা’স্থ্যবিধি মেনে চলবেন।’

তিনি বলেন, ‘সবাইকে সুরক্ষিত করবার জন্য সরঞ্জামের কোনো অভাব আমাদের নাই। সেগুলো আম’রা যেমন বাইরে থেকে আনছি, অনেকে আমাদের অনুদান দিচ্ছে, আবার আম’রা এখানে নিজে’রাও তৈরি করছ, সেভাবে আম’রা কাজ করে যাচ্ছি। আমি এটুকু বলবো, আমাদের মিডিয়াক’র্মী সহ যারা আছেন, তারাও কিন্তু

নিজেদেরকে সুরক্ষিত রাখবেন। ইতোমধ্যে কয়েকজন মিডিয়াক’র্মী ও আমি দেখেছি তারাও আক্রা’ন্ত হয়েছে। এ জন্য সবাইকে সুরক্ষিত থাকার জন্য অনুরো’ধ জা’নাচ্ছি।’

সে পর্যন্ত সীমিত আ’কারে রেলও আম’রা চালু করে দিয়েছি। অর্থাৎ প্রতিটি ক্ষেত্রেই আম’রা বেশি লোকসমাগম না করেও কিন্তু এগুলো যাতে চালু হয়, সেই ব্যব’স্থা নিয়েছি। … আয়-উপার্জনের পথ নাই, তাদের জন্যও আম’রা কিছু নগদ আর্থিক সহায়তা ঈদের আগে দিতে চাই। অ’ন্তত পক্ষে রোজা বা ঈদের সময় তারা যেনো কিছু সহযোগিতা পায়। সেই ব্যব’স্থাটা আম’রা করবো। যাতে মানুষের খাদ্য নি’রাপত্তা নি’শ্চিত হয়’, বলেন তিনি

আমার হাত কতটুকু ল’ম্বা প্রধানম’ন্ত্রীও জানেন না ; এস আই লতিফ

অ’কথ্য ভাষায় গা’লি’গালাজ ও তিন ছাত্রীকে ই’য়াবা দিয়ে জে’লে ঢোকানোর হু`মকির অ’ভিযোগ উঠেছে সিলেটের বিশ্বনাথ থানা পু’লিশের এসআই আব্দুল লতিফের বি’রুদ্ধে। সিলেটের পু’লিশ সুপার বরাবর লিখিত অ’ভিযোগ দিয়েছেন রাহেলা বেগম (৪৫) নামের ভু’ক্তভোগী এক নারী। অ’ভিযোগে তিনি বলেন, বৃহস্পতিবার

রাহেলা বেগমের সতীন মনোয়ারা বেগমের (৪০) দেয়া একটি মি’থ্যা অ’ভিযোগ ত’দন্তে বাড়িতে গিয়ে এসআই আব্দুল লতিফ তার কলেজপড়ুয়া তিন মেয়েকে হু`মকি দেন।

এ সময় দারোগা লতিফ অ’ক’থ্য ভা’ষায় গা’লি’গালাজ করে তার তিন মে’য়েকে ই’য়াবা দিয়ে জে’লে ঢোকানোর হু`মকি দিয়ে বলেন ‘তোদের মতো হাজারও বেহায়া মেয়েদের জে’লে ঢুকিয়ে উচিত শিক্ষা দিয়েছি। আর আমা’র হাত কতটুকু লম্বা তোরা কেন প্রধানমন্ত্রীও জানেন না’। রাহেলা বেগম তার অ’ভিযোগে আরও উল্লেখ

করেছেন, ২০১০ সালে স্বামী ও ৩ ছেলে এবং ১ মেয়েকে ফেলে ১২ বছর বয়সী অ’পর মেয়ে নাজমা বেমগমকে সাথে নিয়ে রাহেলার স্বামী আশিক আলীকে ভ’য় দেখিয়ে বি’য়ে করেন মনোয়ারা বেগম।

পারিবারিক ক’লহের জে’রে ওই বছর ২ ছেলে ও ৩ মেয়েকে নিয়ে রাহেলা স্বামীর কাছ থেকে পৃ’থক হয়ে একই বাড়িতে আলাদা ঘরে বসবাস করেন। আর তার স’তিন মনোয়ারা স্বামী আশিক আলীকে নিয়ে অন্য আরেকটি ঘরে বসবাস করেন। এরপর থেকে দা’দন ব্যবসা করে অ’ঢেল টাকার মালিক হন মনোয়ারা। আর মি’থ্যা

অ’ভিযোগ করে টাকার বিনিময়ে পু’লিশ দিয়ে হয়’রানির পাশাপাশি তার আগের তরফের ৩ ছেলে হাসান আহম’দ (২১), হোসেন আহম’দ (১৯) ও হাবিব আহম’দকে (১৮) দিয়ে প্র’তিনিয়ত রা’হেলা ও তার সন্তানদের প্রাণ নাশের হু`মকি ধা’মকি দিয়ে আসছেন মনোয়ারা।

বর্তমানে তার (রাহেলার) দুই ছেলে ব্যবসা করছে আর ৩ মেয়ে কলেজে লেখা পড়া করছে। গত মঙ্গলবার সকালে মনোয়ারার মেয়ে নাজমা বেগম (২২) ও তার প্রেমিক শাহিনকে (২৪) বাড়ির অন্য একটি ঘরে বিবস্ত্র অবস্থায় পেয়ে মেয়েকে শাসন করেন আশিক আলী। এতে ক্ষি’প্ত হয়ে মনোয়ারা তার স্বামীর কাছ থেকে টাকা পয়সা ও মোবাইল সে’ট কে’ড়ে নিয়ে তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেন।

স্বামী আশিক আলী টাকার জন্য প্রথম স্ত্রী’ রাহেলার ছেলে ই’মামুল ইস’লামের কাছে বাড়ির ৯ টি গাছ ৪ হাজার টাকায় বিক্রি করে ওই টাকা নিয়ে অন্যত্র চলে যান। পরদিন বুধবার সকালে গাছ কা’টা’র সময় মনোয়ারা থানায় গিয়ে ই’মামুলের বি’রুদ্ধে

জো’রপূর্বক গাছ কা’টার অ’ভি’যোগ করেন। রাতে অ’ভিযোগ ত’দন্তে গিয়ে উভয় পক্ষকে ঝ’গ’ড়াঝাটি না করতে বলেন এ’স’আই দেবাশীষ শর্ম্মা। এর পরদিন বৃহস্পতিবার আবারও মনোয়ারা রাহেলার মেঝো মেয়ে সাহেদা বে’গ’মকে পি’টিয়ে আ’হ’ত করার পর থা’নায় গিয়ে উ’ল্টো অ’ভিযোগ করেন, রাহেলার ছেলে-মেয়েরা তাকে

মা’রধর করেছে। আর এই অ’ভিযোগ ত’দন্তে ওইদিন দু’বার তাদের বাড়িতে যান এসআই আব্দুল লতিফ। এসময় তিনি কলেজে পড়ুয়া মেয়েদের ই’য়াবা দিয়ে জে’লে ঢো’কানোর হু`মকি দেন। এ ব্যাপারে বিশ্বনাথ থানার এসআই আব্দুল লতিফ সাংবাদিকদের বলেন, মনোয়ারা বেগম তার সতিনের ছেলে-মেয়দের বি’রুদ্ধে

থানায় অ’ভিযোগ দিলে তিনি ত’দন্তে গিয়ে আইনগতভাবে যা করতে হয় তা তিনি করেছেন।সিলেটের অ’তিরিক্ত পু’লিশ সুপার (দক্ষিণ) ই’মাম মোহাম্ম’দ শাদিদ বলেন, পু’লিশ সুপার না থাকায় এই অ’ভিযোগটি তিনিই দেখছেন। ত’দন্তে অ’ভিযোগের সত্য’তা প্রমানিত হলে এসআই আব্দুল ল’তিফের বি’রু’দ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও জানান তিনি।



Source link

Tags

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button
Close
%d bloggers like this: