Uncategorized

পরীক্ষা নিয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি

পরীক্ষা নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হবে। অনলাইন মাধ্যমে এ ভর্তি পরীক্ষা নেয়া হবে। একটি অ্যাপসের মাধ্যমে অনলাইনে বা অফলাইনে শিক্ষার্থীরা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ ক’রতে পারবেন। এ জন্য একটি সফটওয়্যার তৈরি করা হচ্ছে।

শনিবার পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপা’চার্যদের নিয়ে অনুষ্ঠিত বৈঠক শেষে বিষয়টি জাগো নিউজকে নি’শ্চিত ক’রেছেন চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযু’ক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপা’চার্য অধ্যাপক ড. রফিকুল আলম। রফিকুল আলমের সভাপতিত্বে ভার্চুয়াল ওই সভায় দেশের ৪৬টি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের উপা’চার্য অংশগ্রহণ করেন।সভা সূত্রে জা’না গেছে, করো’না ম’হামা’রির কারণে এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা বা’তিল হলেও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে অনার্স পর্যায়ে শিক্ষার্থী ভর্তির সিদ্ধা’ন্ত নিয়েছেন উপা’চার্যরা।

উপা’চার্যদের সংগঠন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের সভাপতি অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ রফিকুল আলম শনিবার রাতে জাগো নিউজকে বলেন, আম’রা অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধা’ন্ত নিয়েছি। বঙ্গব’ন্ধু ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপা’চার্য অধ্যাপক ড. মোনাজ আহমেদ নূরের উদ্ভাবিত সফটওয়্যার ব্যবহার করে এই পরীক্ষা নেয়া হবে।

তিনি বলেন, বর্তমান প’রিস্থিতিতে সরাসরি ভর্তি পরীক্ষা নেয়া ক’ঠিন হওয়ায় উপা’চার্যরা অনলাইনে ভর্তি পরীক্ষার দিকে জো’র দিয়েছেন। আজকের সভায় পরীক্ষা নেয়ার মতো উপযোগী একটি ডামি (নমুনা) সফটওয়্যার উপস্থাপন ক’রেছেন বঙ্গব’ন্ধু ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপা’চার্য। এর মাধ্যমে বিশ্ববিদ্যালয়ের সব ধ’রনের পরীক্ষা নেয়া সম্ভব। সফটওয়্যারটি তৈরির কাজ শেষ হলে সেটি সরকার ও বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমি’শনের কাছে অনুমোদন নিয়ে তা কা’র্যকর করা হবে।

বৈঠক সূত্র জা’নায়, এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষা বা’তিলের পর জিপিএর ভিত্তিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির যে দা’বি উঠেছিল সেটি নাকচ করে দেয়া হয়েছে। একইস’ঙ্গে বর্তমান প’রিস্থিতি বিবেচনায় সশ’রীরে পরীক্ষা না নিয়ে অনলাইনে পরীক্ষা নেয়ার পক্ষে মত দিয়েছেন অধিকাংশ বিশ্ববিদ্যালয়ের উপা’চার্য।জানতে চাইলে বঙ্গব’ন্ধু ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপা’চার্য অধ্যাপক মোনাজ আহমেদ নূর জাগো নিউজকে বলেন, সমন্বিত পদ্ধতিতে কৃষি, প্রকৌশলী এবং সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছভাবে পাঁচটি ধাপে ভর্তি পরীক্ষা নেয়া হবে। তার মধ্যে সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়ে বিজ্ঞান, বাণিজ্য এবং মানবিক বিভাগের জন্য তিনটি পরীক্ষা আয়োজন করা হবে। পরীক্ষা নেয়ার জন্য একটি সফটওয়্যার তৈরি করা হচ্ছে। এটির নামকরণ করা হয়েছে ‘প্রক্টর রিমোট এক্সাম সিস্টেম (প্রেকয়াস)’। এটি ব্যবহার করে ভর্তি পরীক্ষা ও অভ্যন্তরীণ একাডেমিক পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হবে।

তিনি বলেন, শিক্ষার্থীরা বাসায় বসে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণ ক’রতে পারবেন। এ জন্য একটি অ্যাপস তৈরি করা হবে। সেটি মোবাইল বা কম্পিউটারে ডাউনলোড ক’রতে হবে। পরীক্ষা শুরুর আগে অটোমেটিক পরীক্ষার্থীর অব’স্থান ভিডিও, অডিও এবং স্টিল ছবি উঠে যাবে। সকল কিছু রেকর্ড ধারণ হয়ে থাকবে বলে কোনো ধ’রনের অসাধুপন্থা অবলম্বন করা সম্ভব হবে না। যদি কেউ তা করার চেষ্টা করে তবে ভিডিও ও অডিও ধারণের মাধ্যমে তা ধ’রা পড়বে। এ ধ’রনের প্রমাণ মিললে তার পরীক্ষা বা’তিল করা হবে।

মোনাজ আহমেদ বলেন, স’ম্পূর্ণ দেশীও প্রচেষ্টায় সফটওয়্যার এবং অ্যাপস তৈরি কর হবে। এতে খুব বেশি ব্যয় হবে না। সকল বিশ্ববিদ্যালয়ে এটি বিনামূল্যে দেয়া হবে। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ও এর মাধ্যমে পরীক্ষা নিতে পারবে। এর মাধ্যমে ভর্তি পরীক্ষা, অভ্যন্তরীণ পরীক্ষা এবং শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা নেয়াও সম্ভব। এটি তৈরিতে যা ব্যয় হবে তা ইউজিসির কাছে চাওয়া হবে।

পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় পরিষদের সভায় সকল সিদ্ধা’ন্ত ইউজিসির স’ঙ্গে সভা করে উপস্থাপন করা হবে। সেখানে যে সিদ্ধা’ন্ত হবে তা নিয়ে আবারও উপা’চার্যরা বৈঠক করে ভর্তি পরীক্ষা সংক্রা’ন্ত সকল বিষয়ের চূড়ান্ত সিদ্ধা’ন্ত নেবেন বলে জা’নান তিনি।

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button
Close
%d bloggers like this: