Uncategorized

পরিচালকদের সঙ্গে সম্পর্কে জড়িয়েছেন যে অভিনেত্রীরা

এক সঙ্গে কাজ করতে গিয়ে শুধু সহ-অ’ভিনেতারই প্রে’মে পড়েন না নায়িকারা, কখনও কখনও তাঁদের মেন্টর-পরিচালকের প্রতিও আকৃষ্ট হন তাঁরা।

এই তালিকায় রয়েছেন বলিউডের নামীদামি নায়িকা-পরিচালকরা। দেখে নেওয়া যাক তেমনই কাউকে।ঊর্মিলা মাতন্ডকরের প্রতি একটা গভীর ভাললাগা ছিল পরিচালক রামগোপাল বর্মা’র। নিজের বহু ফিল্মে তিনি ঊর্মিলাকে সুযোগ দিয়েছেন। তার মধ্যে ‘রঙ্গিলা’ এবং ‘সত্য’ অন্যতম।

celeb

মিস ইউনিভা’র্স হওয়ার পর মহেশ ভট্টের ‘দস্তক’ ছবি দিয়ে বলিউডে নিজের কেরিয়ার শুরু করেন সুস্মিতা সেন। এই ছবির চিত্রনাট্য বিক্রম ভট্টের লেখা।

সে সময় বিক্রম ভট্টের সঙ্গে সুস্মিতার স’ম্পর্ক নিয়ে অনেক জলঘোলা হয়েছিল। এক সাক্ষাত্কারে বিক্রম স্বীকার করেছিলেন, তাঁর ছে’লেবেলার বান্ধবী এবং স্ত্রী’ অদিতির সঙ্গে ডিভোর্স হয়ে গিয়েছিল সুস্মিতার জন্য।

হাতেগোনা কয়েকটি ছবি করেছেন প্রাচী দেশাই। তার মধ্যে অন্যতম হল ‘বোল বচ্চন’। এই ছবির পরিচালক ছিলেন রোহিত শেট্টি। প্রাচী নাকি তখন নিজের ছোটখাটো সমস্ত বিষয়েই রোহিত শেট্টির থেকে পরাম’র্শ নিতেন। এমনকি রোহিত তাঁকে শপিং টিপসও দিতেন। দু’জনে লিভ ইন করছেন, বলিউডে এমন গসিপও ছড়িয়েছিল সে সময়।

celeb

‘দেব ডি-’র পর অনুরাগ কশ্যপ এবং কল্কি কেঁকলার মধ্যে স’ম্পর্ক তৈরি হয়। তাঁদের দু’জনের ঘনিষ্ঠতা বিয়ে পর্যন্ত গড়িয়েছিল। তবে তার পরই স’ম্পর্ক জটিল হতে শুরু করে। বছর খানেকের মধ্যেই ডিভোর্স হয় দু’জনের।

celeb

শি’বানী দান্ডেকরর সঙ্গে স’ম্পর্কে রয়েছেন ফারহান আখতার। এই কাপল প্রায়ই সোশ্যাল মিডিয়ায় নিজেদের ছবি শেয়ার করেন। ইতিমধ্যেই বাগদান পর্ব সেরে ফেলেছেন এই যুগল। ২০১৬ সালে ১৬ বছরের প্রথম স’ম্পর্কে ইতি টানেন ফারহান। তারপর তাঁর জীবনে আসেন শি’বানী।

মডেল, অ’ভিনেত্রী চিত্রাঙ্গদা সিংহের প্রথম স্বামী ছিলেন গল্ফার জ্যোতি রণধাওয়া। ২০১৪ সালে দু’জনের ডিভোর্স হয়। তার পর পরিচালক সুধীর মিশ্রের সঙ্গে তাঁর জড়িয়ে পড়া। ‘ইয়ে শালি জিন্দেগি’, ‘ইনকার’ ছবিতে অর্জুন রামপালের বিপরীতে তাঁকে সুযোগ দিয়েছিলেন পরিচালক।পরিচালক সাজিদ খান এবং জ্যাকলিন ফার্নান্ডেজের দীর্ঘ তিন বছরের স’ম্পর্ক ছিল। ২০১৩ সালে তাঁদের ব্রেক আপ হয়।

celeb

পরিণীতি চোপড়া নাকি বারংবার পরিচালকদের প্রে’মে পড়েন। এর আগে নাকি ‘লেডিস ভা’র্সেস রিকি বহেল’ এবং ‘শুদ্ধ দেশি রোমান্স’ ছবির পরিচালক মণীশ শর্মা’র প্রে’মে পড়েছিলেন এই নায়িকা। সে স’ম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার তিনি আবার এক সহকারী পরিচালকের প্রে’মে পড়েছিলেন।

পরিচালক অনুরাগ কশ্যপ এবং কল্কি কেঁকলার স’ম্পর্ক জটিল হওয়ার পিছনে অ’ভিনেত্রী হু’মা কুরেশির অবদান রয়েছে, ইন্ডাস্ট্রিতে এমনই গুঞ্জন। তাঁদের ডিভোর্সের আগে থেকেই নাকি ক্রমশ হু’মা’র ঘনিষ্ঠ হয়ে পড়েছিলেন অনুরাগ কশ্যপ। আর এই নিয়েই স্বামী-স্ত্রী’র মধ্যে অশান্তি লেগে থাকত। তবে তাঁদের প্রে’মের কথা কখনও অনুরাগ বা হু’মা স্বীকার করেননি।

চিরকালই খোলামেলা পরিচালক বিক্রম ভট্ট। সুস্মিতা সেনের সঙ্গে স’ম্পর্ক নিয়ে কখনও লুকোচু’রি করেননি। তেমনই সুস্মিতার পর তাঁর আমিশা পটেলের সঙ্গে স’ম্পর্ক তৈরি হয়েছিল। সেটাও স্বীকার করেছেন তিনি। তবে সে স’ম্পর্ক কোনও পরিণতি পায়নি।

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button
Close
%d bloggers like this: