Uncategorized

ছুটি বাড়ছে ৩০ মে পর্যন্ত, যে যেখানে আছে সেখানেই ঈদ করতে হবে !

ছুটি বাড়ছে ৩০ মে পর্যন্ত- করোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) সংক্রমণ রোধে চলমান সাধারণ ছুটি আরও ১৪ দিন বাড়ছে। আগামী ১৭ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

বুধবার (১৩ মে) সন্ধ্যায় প্রতিমন্ত্রী এ তথ্য জানান। তিনি বলেন, ‘আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) ছুটি বাড়ানোর প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।’

১৪ দিন ছুটির মধ্যে শবে কদর, ঈদ ও সাপ্তাহিক ছুটিরও অন্তর্ভুক্ত থাকবে। চাঁদ দেখা সাপেক্ষে আগামী ২৪ বা ২৫ মে দেশে মুসলমানদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব পবিত্র ঈদুল ফিতর উদযাপিত হবে।

করোনার কারণে সরকার প্রথমে ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত ছুটি ঘোষণা করে। পরে কয়েক দফায় ছুটি বাড়িয়ে ১৬ মে পর্যন্ত করা হয়। কিন্তু দেশে এখনও করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতির উন্নতি নেই, বরং দিন দিন অবনতির দিকে যাচ্ছে।

ফরহাদ হোসেন বলেন, ‘ঈদের দুই দিন আগে, ঈদের দিন ও ঈদের চার দিন পর- এই সাতদিন এখন প্রাইভেটকারসহ যেসব সাধারণ যানবাহন রাস্তায় রয়েছে, এগুলোর চলাচল কঠোরভাবে নিয়ন্ত্রণ করা হবে, যাতে এগুলো চলাচল করতে না পারে।’

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘যে যেখানে আছেন, সেখান থেকেই ঈদ করতে হবে। এসব নির্দেশনা ছুটি বাড়ানোর প্রজ্ঞাপনে থাকবে।’

গত ১৬ মে ও ঈদের ছুটির মাঝখানে কর্মদিবস মাত্র চারটি- ১৭, ১৮, ১৯, ২০ মে। এরপর ২১ মে শবে কদরের ছুটি। এরপর ২২ ও ২৩ মে সাপ্তাহিক ছুটি।

আবার রমজান মাস ৩০ দিন ধরে ২৪ মে (রোববার) থেকে শুরু ঈদের ছুটি। ২৫ ও ২৬ মে’ও (সোম ও মঙ্গল) ঈদের ছুটি থাকবে। সরকারি ছুটির তালিকায় এভাবেই নির্ধারিত আছে। তবে রমজান মাস ২৯ দিনে শেষ হলে ঈদের ছুটি থাকবে ২৩, ২৪ ও ২৫ মে (শনি, রবি ও সোম)।

ইতোমধ্যে জরুরি সেবা সংশ্লিষ্ট সরকারি অফিস সীমিত পরিসরে খুলে দেয়া হয়েছে। এছাড়া স্বাস্থ্যবিধি মানা সাপেক্ষে দোকান, শপিংমল, কারখানা, গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিসহ অন্যান্য শিল্প ও ব্যবসা প্রতিষ্ঠান সীমিত আকারে খুলে দেয়া হয়েছে। তবে বন্ধ রয়েছে গণপরিবহন।

বুধবার (১৩ মে) দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদফতরের করোনাভাইরাস সংক্রান্ত নিয়মিত হেলথ বুলেটিনে জানানো হয়, দেশে মহামারি করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ১৯ জন প্রাণ হারিয়েছেন। ভাইরাসটি হানা দেয়ার পর দেশে এটিই এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ মৃত্যুর রেকর্ড। এ নিয়ে করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ২৬৯ জনে।

একই সময়ে ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন আরও এক হাজার ১৬২ জন। এটিও একদিনে সর্বোচ্চ শনাক্তের রেকর্ড। সবমিলিয়ে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ালো ১৭ হাজার ৮২২ জনে।

দীর্ঘ হচ্ছে মৃ’ত্’যুর মিছিল, শিশু-বৃদ্ধ বাদ পড়ছে না কেউ

করোনা’ভা’ইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃ’ত্যু’র মিছিল ক্রমেই দীর্ঘ হচ্ছে। বুধবার (১৩ মে) পর্যন্ত দেশে এ ভা’ইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১৭ হাজার ৮২২ জন এবং মৃ’তে’র সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২৬৯ জনে।

গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনাভাইরাস রোগী শনাক্ত হয়। শনাক্তের বেশ কয়েকদিন পর ১৮ মার্চ করোনাভাইরাস আক্রান্ত হয়ে প্রথম রোগীর মৃত্যু হয়। এরপর করোনাভাইরাস আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা কিছুটা কমে। কিন্তু চলতি মাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা লাফিয়ে বাড়ছে।

গত ৭ মে থেকে ১২ মে পর্যন্ত মাত্র ছয়দিনে মৃ’ত্যু হয়েছে ৭২ জনের, অর্থাৎ এ সময় গড়ে প্রতিদিন ১২ জনের মৃ’ত্যু হয়। মৃ’ত্যু’র তালিকায় শিশু থেকে শুরু করে বয়োবৃদ্ধ কেউ বাদ পড়েনি।

স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা বারবার বলছেন, আপনার সুরক্ষা আপনার হাতে। তারা বারবার স্বাস্থ্যবিধি মেনে না চললে সামনের দিনগুলোতে আরো ভয়াবহ পরিস্থিতি হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেছেন। কিন্তু তাদের নির্দেশনা মানছে না কেউ।

গত ২৪ ঘণ্টায় ১৯ জন প্রাণ হারিয়েছেন তাদের মধ্যে ১৩ জন রাজধানী ঢাকার বাসিন্দা। তাদের একজনের ঠিকানা পাবনা লেখা রয়েছে। এছাড়া নারায়ণগঞ্জে একজন, মুন্সিগঞ্জ একজন, খুলনা বিভাগে একজন (নড়াইল), চট্টগ্রাম বিভাগের তিনজন (চট্টগ্রামে দুজন ও কুমিল্লায় একজন)।

বয়সভিত্তিক বিশ্লেষণে দেখা গেছে, মৃত ১৯ জনের মধ্যে ১০ বছর বয়স পর্যন্ত একজন মেয়েশিশু রয়েছে। ৩১ থেকে ৪০ বছরের একজন, ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে ৭ জন, ৬১ থেকে ৭০ বছরের মধ্যে ৫ জন, ৭১ থেকে ৮০ বছরের মধ্যে ৫ জন রয়েছেন।

গত ডিসেম্বরে চীনের উহান শহরে প্রথম শনাক্ত হলেও এখন করোনাভাইরাসের কবলে গোটা বিশ্বই। বর্তমানে সবচেয়ে বেশি ভুগছে ইউরোপ-আমেরিকা-এশিয়াসহ বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চল। এ ভাইরাসে বিশ্বজুড়ে আক্রান্তের সংখ্যা এখন পর্যন্ত সাড়ে ৪৩ লাখ। মৃতের সংখ্যা দুই লাখ ৯৩ হাজারেরও বেশি। ইতিমধ্যে সুস্থ হয়েছেন ১৬ লাখেরও বেশি রোগী।





Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button
Close
%d bloggers like this: