Uncategorized

ঘূ’র্ণিঝড়ের সংকে’ত পেলেই বড় জাহাজ কেন গভীর সমুদ্রে পাঠানো হয়?

সুপার সাইক্লোন আম্পান আর কয়েক ঘণ্টা পরেই আছড়ে পড়বে বাংলাদেশের উপকূলীয় এলাকায়। অন্যান্য বারের মতো এবারও ঘূ’র্ণিঝ’ড় আম্পানের কারণে মঙ্গলবার (১৯ মে) বন্দরের জেটিতে থাকা ১৯টি জাহাজকে বহির্নোঙরে পাঠিয়ে দিয়েছে চট্টগ্রাম বন্দর ক’র্তৃপক্ষ। বহির্নোঙরে থাকা মাদার ভ্যাসেলগুলো (বড় জাহাজ) পাঠিয়ে দেয়া হয়েছে কক্সবাজার উপকূলের গ’ভীর সাগরে। মাঝারি আ’কারের জাহাজ পা’ঠানো হয়েছে সাগরের কুতুবদিয়া অংশে।

আবহাওয়া অফিস বিধ্বং’সী ঘূ’র্ণিঝ’ড়ের সংকেত দেখালেই বন্দরের জেটিতে থাকা বড় বড় জাহাজকে গ’ভীর সাগরে পাঠিয়ে দেয়। অন্যদিকে ছোট ছোট জাহাজ, ট্রলারকে উপকূলের কাছাকাছি নি’রাপদ আশ্রয়ে নিয়ে আসা হয়। সাধারণ মানুষের কাছে বড় জাহাজকে বি’পদের সময় গ’ভীর সাগরে পাঠিয়ে দেয়া ‘অমানবিক আচরণ’ মনে হলেও বন্দর ক’র্তৃপক্ষ এ কাজটি করে জাহাজে’র নি’রাপত্তা ও ক্ষ’তি কমানোর জন্য।

ঘূ’র্ণিঝ’ড় আম্পানের কারণে বুধবার (২০ মে) সকাল ৬টা থেকে মোংলা ও পায়রা সমুদ্রবন্দরকে ১০ নম্বর মহাবি’পদ সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। এছাড়া চট্টগ্রাম ও কক্সবাজার সমুদ্রবন্দরকে দেখাতে বলা হয়েছে ৯ নম্বর মহাবি’পদ সংকেত। চট্টগ্রাম বন্দর ক’র্তৃপক্ষের চিফ হাইড্রো’গ্রাফার কমান্ডার এম আরিফুর রহমানজ বড় জাহাজ সাগরে পা’ঠানো প্রস’ঙ্গে জা’নান, অনেকের মনে আছে ১৯৯১ সালের প্র’লয়ঙ্করী ঘূ’র্ণিঝ’ড়ে কর্ণফুলী নদীর শাহ আমানত সেতুর মাঝখানের একটি অংশ নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছিল একটি বড় জাহাজ। এটি একটি অভিজ্ঞতা।

পাশাপাশি জেটিতে বাঁ’ধা বড় জাহাজগুলো প্রচ’ণ্ড ঝ’ড়ে রশি ছিঁড়ে একটি আরেকটির ওপর আছড়ে পড়লে, ধা’ক্কা দিলে ক্ষয়ক্ষ’তি বেশি হবে। বন্দর চ্যানেলে যদি কোনো জাহাজ ডুবে যায় তবে বন্দরে জাহাজ আসা-যাওয়া ব’ন্ধ হওয়ার আশ’ঙ্কাও থাকে। সবচেয়ে বড় কথা মেরিটাইম ওয়ার্ল্ডে স্ট্যান্ডার্ড অপারেটিং প্রসিডিউর (এসওপি) হচ্ছে কৃত্রিম বা প্রটেকটেড হারবার না থাকলে বড় জাহাজকে গ’ভীর সাগরে পাঠিয়ে দেয়া হয়। চট্টগ্রাম বন্দরে আছে ন্যাচারাল হারবার, এটি প্রকৃতির দান।

সূত্র: সময়নিউজ



Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button
Close
%d bloggers like this: