Uncategorized

এবার মাদক কাণ্ডে তলব দীপিকাকে, ডাকা হল সারা-শ্রদ্ধা-রাকুলকেও

বলিউডের মাদক কাণ্ডে চাঞ্চল্যকর মোড়। জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নারকোটিক্স কন্ট্রোল ব্যুরো (এনসিবি) ডেকে পাঠাল দীপিকা পাড়ুকোনসহ চার অভিনেত্রীকে। দীপিকা ছাড়া তলব করা হল সারা আলি খান, শ্রদ্ধা কাপুর এবং রাকুল প্রীত সিংহকে। আগামী তিন দিনের মধ্যে ওই চার বলিউড অভিনেত্রীকে তাদের দফতরে উপস্থিত হওয়ার নির্দেশ দিয়েছে এনসিবি।

দীপিকা এই মুহূর্তে গোয়ায় পরিচালক শকুন বাত্রার একটি ছবির শুটে রয়েছেন। মঙ্গলবার পর্যন্ত ছবির শুটিং হলেও বুধবার থেকে আপাতত স্থগিত রয়েছে ছবির শুটিং। দীপিকার পাশপাশি মঙ্গলবারই তার ম্যানেজার কারিশ্মা প্রকাশকে ডেকে পাঠায় এনসিবি। তবে শারীরিক অসুস্থতার কারণ দেখিয়ে আপাতত এনসিবি-র কাছ থেকে কিছু দিন সময় চেয়েছেন কারিশ্মা। কয়েকটি সূত্র বলছে, দীপিকা এবং কারিশ্মা এই মুহূর্তে একসঙ্গে গোয়াতেই রয়েছেন।

সোমবার রাতেই বেশ কয়েকজন বলি তারকার হোয়াটসঅ্যাপ চ্যাট হাতে আসে এনসিবি-র। চ্যাটটি পুরনো। ২০১৭ নাগাদ। সেই চ্যাটেই দেখা যায়, ‘ডি’ এবং ‘কে’ নামে দুই ব্যক্তির মধ্যে মাদক প্রসঙ্গে একাধিক বার কথা চালাচালি হয়েছে। কখনও ‘ডি’, ‘কে’-কে গাঁজা আছে কিনা জিজ্ঞাসা করছেন। আবার কখনও বা ‘কে’ তাকে (ডি’কে) গাঁজার হদিশ দিচ্ছেন।

বলিউডের একাংশের দাবি, এই ‘ডি’ হলেন দীপিকা নিজেই। আর ‘কে’ অর্থাৎ কারিশ্মা দীপিকার ম্যানেজার। সত্যিই কি তাই? খতিয়ে দেখছে এনসিবি। পাশাপাশি এনসিবি-র নজরে রয়েছে বছর তিনেক আগে দীপিকাসহ বলিউডের বেশ কয়েকজন নামজাদা অভিনেতার ক্লাব ‘কোকো’তে একটি পার্টির ঘটনা। বলিউডের অন্দরের খবর, ওই পার্টির জন্যই‘কে’-র কাছে গাঁজার খবর জানতে চাইছিলেন ‘ডি’।

কারিশ্মা কাজ করেন ‘কওয়ান ট্যালেন্ট ম্যানেজমেন্ট এজেন্সি’-তে। ‘কওয়ান ট্যালেন্ট ম্যানেজমেন্ট এজেন্সি’র কর্ণধার মধু মন্টেনাকে আজ জেরা করেছে এনসিবি। কারিশ্মা আবার সুশান্তের প্রাক্তন ম্যানেজার জয়া সাহারও ঘনিষ্ঠ বন্ধু। এই জয়ার সঙ্গেই রিয়া চক্রবর্তীর মাদক সংক্রান্ত চ্যাট কিছু দিন আগে ফাঁস হয়েছিল। জয়া রিয়াকে লিখেছিলেন, “সুশান্তের চায়ে চার ফোঁটা মিশিয়ে দিও। ৩০/৪০ মিনিটের মধ্যেই ফল টের পাবে।’

গত তিন ধরেই জয়াকে নিয়মিত তাদের দফতরে ডেকে পাঠাচ্ছে এনসিবি। শোনা যাচ্ছে, জয়া এবং কারিশ্মাকে মুখোমুখি বসিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে। এনসিবি সূত্রে জানা যাচ্ছে, মঙ্গলবার জয়া সাহা জিজ্ঞাসাবাদের সময় এনসিবি-কে জানান, রিয়া, শ্রদ্ধা এবং সুশান্তের জন্য তিনিই সিবিডি অয়েল (ক্যানাবিডিয়ল) কিনে দিয়েছিলেন। সিবিডি আদপে গাঁজা থেকে তৈরি এক ধরনের তেল জাতীয় পদার্থ।

এনসিবি সূত্রে আরও জানা যাচ্ছে, রাকুল এবং সারার নাম বয়ানে উল্লেখ করেন মাদক কাণ্ডে অন্যতম অভিযুক্ত রিয়া চক্রবর্তী। রিয়ার বয়ান অনুযায়ী,‘কেদারনাথ’ছবির শুটিংয়ের সময় থেকেই মাদকাসক্ত হয়ে পড়েন সুশান্ত। ওই ছবিতে সুশান্তের কো-স্টার ছিলেন সারা। সে সময় সম্পর্কেও ছিলেন তারা।

কিছু দিন আগেই সারা এবং সুশান্তের একটি পুরনো ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল। সেই ভিডিওতে দেখা গিয়েছিল, একসঙ্গে ধূমপান করছেন সারা-সুশান্ত। রিয়া এদিকে এনসিবি-কে জানিয়েছেন, সুশান্তের সিগারেটে গাঁজা ভরে খাওয়ার অভ্যাস ছিল। আর সেই অভ্যাস নাকি হয়েছিল ‘কেদারনাথ’শুটের সময়েই।

সুশান্তের মতো সারাও কি মাদকাসক্ত? খতিয়ে দেখবে এনসিবি। এখন পর্যন্ত সারা, দীপিকা, রাকুল বা শ্রদ্ধা, কেউই এ বিষয়ে কোনও প্রতিক্রিয়া দেননি। তবে বলিউডের প্রথম সারির অভিনেতাদের নাম হঠাৎই মাদক মামলায় জড়িয়ে যাওয়ায় আপাতত স্তম্ভিত বলিউড। শোনা যাচ্ছে, এখানেই শেষ নয়। এনসিবি’র নজরে আরও বেশ কয়েকজন বলিস্টার। এরপর ডাক পড়বে কার? উত্তাল ইন্ডাস্ট্রি। সূত্র : আনন্দবাজার পত্রিকা।

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button
Close
%d bloggers like this: