Uncategorized

একদিন এক স্ত্রী তার স্বামীকে পরীক্ষা করার জন্য খাটের নিচে লুকিয়ে পরল, তারপর

একদিন এক স্ত্রী তার স্বামীকে পরীক্ষা করার জন্য সিদ্ধান্ত নিলো ! স্বামীর ঘরে ঢোকার শব্দ পেয়ে স্ত্রী খাটের নিচে লুকিয়ে পরল! পাশেই একটা টেবিলে একটা চিরকুট দেখতে পেয়ে ভদ্রলোকটি পড়তে শুরু করলেন…

স্ত্রী: তুমি এখন আর আমার কেয়ার নাওনা …ভালোবাসোনা… সময় দাওনা.. মনে হচ্ছে তোমার জীবনে অন্য কোনো মেয়ের আগমন ঘটেছে ! দূরে সরে যাওয়ার চেষ্টা করছো ! তোমার আর কষ্ট করা লাগবেনা! আমি ই তোমার থেকে দূরে সরে যাচ্ছি! ভালো থেকো তুমি!

চিড়কুট টি পড়ার পড়ে স্বামী পকেট থেকে ফোন বের করে কানে দিয়ে ই বলতে শুরু করলো… জানু… আপদটা বিদায় হয়েছে..এখন রিলাক্সে থাকতে পারব !

আমি এখন ই আসছি তোমার সাথে দেখা করতে…! এসব বলে ফোনটা কেটে দিয়ে ড্রেস চেইঞ্জ করে রুম থেকে তাড়াতাড়ি বেরিয়ে পরল ! এসব শুনতে শুনতে স্ত্রী মুখ চেপে কান্না করতে লাগলেন!

স্বামী চলে যাওয়ার পরে কিছুক্ষণ পরে খাটের নিচ থেকে বেরিয়ে এলেন ! খাটের উপর একটি চিড়কুট পেলেন… লেখাটা পড়ে অবাক হয়ে গেলেন ! তাতে লেখা ছিলো… পাগলী বউ একটা!

খাটের নিচ তোমার পা গুলো দেখা যাচ্ছিল্লো … আমি তো তোমার জন্য ই কাজকর্মে যাই..তোমার সুখের জন্যই তো এত কষ্ট করি! তবু তুমি ভুল বুঝো! আমি তোমায় অনেক ভালোবাসি ! আমি কাউকে ই ফোন করিনি!

বাজার থেকে মাংস আনতে যাচ্ছি… তুমি খাবার রেডি করতে থাকো .. তারপর একসাথে বসে খাবো কেমন! আমার পাগলী একটা! লেখাটি দেখে স্ত্রী বসে পরলেন… কাদতে শুরু করলেন..

কি ভুলটা ই না করতে যাচ্ছিলেন তিনি! বি.দ্র : ভালোবাসায় সন্দেহ নয় ..বিশ্বাস রাখতে হয়! একটা ছেলে যত কষ্ট করে তা তার প্রিয়জনকে সুখী রাখার জন্যই করে!

ফেসবুক থেকে নেওয়া।

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button
Close
%d bloggers like this: