Uncategorized

আমার রেকর্ড ভাঙতে পারে অশ্বিন: মুরলীধরন – Kolkata24x7

কলম্বো: শুক্রবার থেকে ব্রিসবেনে শুরু হচ্ছে ভারত-অস্ট্রেলিয়ার শেষ টেস্ট৷ সিরিজ ১-১ অবস্থায় গাব্বায় নামছে দুই দল৷ ম্যাচের আগের দিন অজি অফ-স্পিনার নাথান লায়নের থেকে রবিচন্দ্রন অশ্বিনকে এগিয়ে রাখলেন মুথাইয়া মুরলীধরন৷ কিংবদন্তি এই স্পিনারের মতে, নাথান নয়, তাঁর ৮০০ টেস্ট উইকেটের রেকর্ড ভাঙতে পারেন অশ্বিন৷

টেস্ট ক্রিকেটের ইতিহাসে একমাত্র মুরলীধরনের দখলেই রয়েছে ৮০০টি উইকেট৷ বিশ্বের সর্বকালের অন্যতম সেরা স্পিনার হলেন শ্রীলঙ্কান কিংবদন্তি৷ বৃহস্পতিবার অস্ট্রেলিয়ান সংবাদপত্র ‘দ্য সিডনি মনিং হেরাল্ড’-কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে মুরলী বলেন, ‘অশ্বিন (৩৭৭) আমার কাছাকাছি করতে পারে৷ তবে বাকি কোনও তরুণ স্পিনারকে দেখছি না, যে ৮০০ উইকেট নিতে পারে৷ নাথান লায়নের সেই সম্ভাবনা দেখছি না৷ ও চারশো উইকেটের (৩৯৬) কাছাকাছি রয়েছে, কিন্তু ও অনেক বেশি ম্যাচ খেলেছে৷ আমি লায়ন তা পারবে বলে৷’

গাব্বায় মাঠে নামার আগে অশ্বিনের দখলে রয়েছে ৩৭৭টি টেস্ট উইকেট৷ আর অজি অফ-স্পিনার লায়নের উইকেট সংখ্যা ৩৯৬। একই বছর দু’জনের টেস্ট অভিষেক হয়। ২০১১ থেকে এখনও পর্যন্ত ৩৩ বছরের লায়ন খেলেছেন ৯৯টি টেস্ট৷ আর ৩৪ বছরের ভারতীয় অফ-স্পিনার অশ্বিন খেলেছেন ৭৪টি টেস্ট।

আধুনিক ক্রিকেটে বোলারদের কাজটা কঠিন বলে যাঁরা মনে করেন, তাঁদের দলে নেই মুরলীধরন৷ কিংবদন্তি এই স্পিনারের মতে, এখনকার দিনে উইকেট পাওয়া অনেক সহজ৷ মুরলী বলেন, ‘টি-২০ ও ওয়ান ডে ক্রিকেট টেস্টের অনেক পরিবর্তন এনেছে৷ আমি যখন খেলতাম, তখন ব্যাটসম্যানরা টেকনিক্যালি আরও ভালো ছিল৷ উইকেট আরও পাটা ছিল৷ কিন্তু এখন টেস্ট ম্যাচ তারা তিনদিনেই শেষ করে দিতে চাই৷’

তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের সময়ে বোলারদের বাড়তি পরিশ্রম করতে হত। কিন্তু এখন মোটামুটি একটা লাইন লেংথে বল করলেই পাঁচ উইকেট বাঁধা। কারণ ব্যাটসম্যানরা শুরু থেকেই আক্রমণে যেতে গিয়ে বেশিক্ষণ উইকেটে থাকছে না। ফিল্ডারদের ঠিকঠাক জায়গায় দাঁড় করালে উইকেট পাওয়া যাবেই। ব্যাটসম্যানরাই বাকি কাজটা করে দেবে।’

লাল-নীল-গেরুয়া…! ‘রঙ’ ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা ‘খাচ্ছে’? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম ‘সংবাদ’!

‘ব্রেকিং’ আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের।

কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে ‘রঙ’ লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে ‘ফেক’ তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই ‘ফ্রি’ নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.


করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I

Source link

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button
Close
%d bloggers like this: