Uncategorized

আজান দেওয়াকে হারাম বললেনঃ জাভেদ আখতার

লা’উ’ড’স্পি’কা’রে আ’জা’ন দেওয়া ব’ন্ধ করা উচিত, এতে অন্যের অ’সু’বি’ধা হয়, মনে করেন জা’ভেদ আ’খতার। সম্প্রতি একটি ট্যুইটে তিনি এই ম’ন্ত’ব্য করেছেন। আর সেই ট্যু’ই’ট নিয়েই শুরু হয়েছে বি’ত’র্ক।

জাভেদ লিখেছেন, ‘‌ভা’রতে অ’ন্ত’ত ৫০ বছর ধরে লা’উ’ড স্পি’কা’রে আ’জা’ন দে’ও’য়া’কে ‘‌হা’রা’ম’‌ বলা হত। তারপর হঠাৎ করে সেটি ‘‌হা’লা’ল’ হয়ে গেল। কী করে?‌ এই প্র’ক্রি’য়া থা’মা দরকার।

আ’জা’ন দেওয়া ঠিক আছে, কিন্তু লা’উ’ড স্পি’কা’রে আ’জান দেওয়ার মানে হয় না, কারণ এতে অন্য লোকের অ’সু’বিধা হয়। আমার আ’শা, এবার অ’ন্ত’ত তারা নিজেদের মতো করে আ’জা’ন দেবেন।’

আল্লাহ-কে সর্বশক্তিমান বলে মনে করেন ইস’লাম ধ’র্মের অনুসারীরা। যাব’তীয় সব সমস্যার সমাধান থাকে পবিত্র ধ’র্মগ্রন্থ কোরানে এমনটাই সকল মু’সলিমের ধারনা। মৃ’’ত মানুষও বেঁচে উঠতে পারেন যদি আল্লাহ সহায় থাকেন তারা দাবি করেন বলেন বাংলাদেশের নির্বাসিত এই লেখিকা নাস্তিক তসলিমা নাসরিন।তিনি

আরও বলেন মু’সলিম’দের এই মনোভাব নিয়ে বিতর্ক কিছু কম নেই। যা নিয়ে কটাক্ষ করেন নাস্তিকেরা।বাংলাদেশের নির্বাসিত এই লেখিকা তসলিমা নাসরিন, ইস’লাম নিয়ে বিভিন্ন সময়ে বিরূপ মন্তব্য করে থাকেন

। তার সেই ধা’রা বজায় রেখেই বাংলাদেশের নির্বাসিত এই লেখিকা তসলিমা নাসরিন ফের কটাক্ষ করেছেন ইস’লামের অনুসারীদের।

এবারের তার কটাক্ষের বি’ষয় করো’না ভাই’রাস নিয়ে। তিনি বলেন,বর্তমানে বিশ্ব জুড়ে ছড়াচ্ছে করো’না ভাই’রাস। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে এই রোগের প্রকো’প ে আ’ক্রান্তের সংখ্যাও।পৃথিবীর এই প্রতিকূলতার

মাঝেও ঈশ্বর বা ঈশ্বরদের কাছ থেকে কোনও সুরাহা মিলছে না। পৃথিবীর অনেক জায়গায় ই বর্তমানে বন্ধ রাখা হয়েছে ম’সজিদ। নমাজের জন্যেও খোলা হচ্ছে না উপাসনাস্থল গু’লো। এবারে তসলিমা নাসরিন মুলত কটাক্ষ করেছেন এট নিয়েই।

রবিবার দুপুরের দিকে বাংলাদেশের নির্বাসিত এই লেখিকা নাস্তিক তসলিমা নাসরিন টুইট করে লিখেছেন, “নামাজের ডাক বা আজানের নিয়মের ক্ষেত্রে বদল আনা হয়েছে মু’সলিম’দের। সমবেত জমায়েত হয়ে প্রার্থনা বা নমাজের জন্য আর উপাসকদের নির্দেশ দেওয়া হচ্ছে না।” সেই স”ঙ্গে তিনি আরও বলেছেন, “এখন ম’সজিদ থেকে বলা হচ্ছে নিজেদের ঘরে বসেই প্রার্থনা করুন।”

তসলিমা লিখেছেন, “মু’সলিম সম্প্রদায়ের মানুষেরা খুব ভালো করেই জানেন যে করো’না ভাই’রাস থেকে মানুষকে বাঁ’চানোর ক্ষমতা আল্লাহ-র নেই।বিশ্ব জুড়ে করো’না আত’ঙ্কের মাঝে সাবধানতা অবলম্বন করা শুরু

হয়ে গিয়েছে ধ’র্মীয় স্থানগু’’লিতেও। শনিবার দুপুরের দিকে টুইট করে তিনি লেখেন, “কোনও ঈশ্বর আমা’দের সাহায্য করতে আসবে না। “আল্লাহর ঘর হচ্ছে কাবা, তা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। ম’সজিদ্গু’’লিও বন্ধ। প্রার্থণার ঘরগু’’লিতেও আর ভিড় হচ্ছে না।

করো’না ভাই’রাসের অবসান ঘটাতে যদি কেউ সাহায্য করে তবে তা বিজ্ঞানীরা করবে বলে তিনি জানান। আম’রা এখন ভ্যাকসিনের জন্য অ’পেক্ষা করছি।টুইটের শেষ লাইনে তিনি লিখেছেন, “নাস্তিক হওয়ার জন্য

এটাই আদর্শ সময়।ধ’র্ম এবং সংশ্লিষ্ট বি’ষয়ের স”ঙ্গে বাংলাদেশের নির্বাসিত এই লেখিকা তসলিমা নাসরিনের বিরোধ নতুন কিছু নয়। যার কারণেই তিনি তার জীবনে বারবার আ’ক্রমণ সম্মুখীন হয়েছেন। বাংলাদেশ

থেকেও তাকে বিতারিত করা হয়েছিল এই ধ’র্মীয় বিদ্বেষের কারণেই। ঠাঁই মেলেনি কলকাতার মাটিতেও। অনেক জটিলতা পার করে এখন তিনি সুইডেনের নাগরিক।

তার এই বিরূপ মন্তব্বের জন্য ইস’লাম ধ’র্মীরা তাকে নিয়ে কড়া সমালচনা করছেন।তাকে কোনভাবেই বাংলাদেশের মাটিতে পা রাখতে দেওয়া যাবেনা বলে হুশিয়ারি দেন ইস’লাম ধ’র্মীরা।

সুত্রঃ নজরবন্দি , কলকাতা



Source link

Tags

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Articles

Back to top button
Close
%d bloggers like this: